Road Safety

‘ট্রাফিক আইন মানি এবং যানজটমুক্ত ঢাকা গড়ি’

জনসাধারণের প্রতি-

১। রাস্তা পারাপারে ফুট-ওভারব্রীজ/আন্ডারপাস/জেব্রাক্রসিং ব্যবহার করুন, যত্রতত্র রাস্তা পারাপার দন্ডনীয় অপরাধ।
২। রাস্তা পারাপারের সময় হেডফোন ব্যবহার করা ও মোবাইলে কথা বলা উচিত না।
৩। পায়ে হেঁটে চলাচলের সময় ফুটপাত ব্যবহার করুন।
৪। চলন্ত গাড়িতে ওঠা ও নামা থেকে বিরত থাকুন।
৫। রাস্তায়/ফুটপাতে নির্মাণ সামগ্রী/দোকানের মালামাল/দোকানের সাইনবোর্ড রাখবেন না।
৬। ঝুঁকি নিয়ে গাড়িতে ভ্রমণ করবেন না। বাসের ছাদে, বাম্পারে, পা-দানিতে ভ্রমণ হইতে বিরত থাকুন।
৭। বাস-বে/নির্দিষ্ট স্থান ব্যাতিত গাড়িতে উঠা/নামা থেকে বিরত থাকুন।
৮। যাত্রীরা কখনই চালককে দ্রুত গতিতে গাড়ি চালাতে উদ্ধুদ্ধ করবেন না।
৯। পাবলিক পরিবহনে ধুমপান হতে বিরত থাকুন।
১০। রেলওয়ে ক্রসিং/লেভেল ক্রসিং এ লাল বাতি জ্বলন্ত অবস্থায় রাস্তা পার হওয়া থেকে বিরত থাকুন। ট্রেন চলে যাবার পর রাস্তা পার হোন।
১১। ভ্রমনকালীন সময়ে অপরিচিত লোকের দেয়া কোন কিছু খাবেন না।
১২। শারীরিক প্রতিবন্ধী, বৃদ্ধ, শিশু ও নারীদেরকে যানবাহন আসন ব্যবহারে অগ্রাধিকার দিন।
১৩। বাস বে/নির্ধারিত স্থান ব্যতীত রাস্তায় দাঁড়িয়ে যানবাহনের জন্য অপেক্ষা করা হতে বিরত থাকুন।

 

অভিভাবক ও শিক্ষকদের প্রতি-

১। ছোট ছোট ছেলে-মেয়েদেরকে ট্রাফিক নিয়ম-কানুন সম্পর্কে প্রাথমিক জ্ঞান দিন।
২। ফুটপাত দিয়ে চলাচল করার জন্য উদ্ধুদ্ধ করুন।
৩। শিশুদের জানতে হবে নিরাপত্তাই প্রথম।
৪। শিশুদের ট্রাফিক আইনের সাথে পরিচিত করুন।

 

গাড়ি চালকদের প্রতি-

১। গাড়ি চালানোর পূর্বে গাড়ির সমস্ত কাগজপত্র ও ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক করে নিন ও হালনাগাদ কাগজপত্র সাথে রাখুন।
২। অযথা হর্ণ বাজানো থেকে বিরত থাকুন।
৩। সিটবেল্ট বেঁধে গাড়ি চালান।
৪। গাড়ি চালানোর সময় গতিসীমা মেনে চলুন।
৫। ঘনঘন লেন পরিবর্তন করা থেকে বিরত থাকুন।
৬। অযথা ওভারটেকিং করা থেকে বিরত থাকুন এবং সতর্কতার সাথে ওভারটেকিং করুন।
৭। গাড়ি চালানোর পূর্বে গাড়ির সমস্ত কাগজপত্র ও ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক করে নিন ও হালনাগাদ কাগজপত্র সাথে রাখুন।
৮। স্ব-স্ব প্রতিষ্ঠানের লোগোসহ স্থায়ী স্টীকার ব্যতীত আলগা/অস্থায়ী যে কোন ধরণের স্টীকার ব্যবহার হতে বিরত থাকুন।
৯। দূর্ঘটনা প্রতিরোধে গাড়ির যন্ত্রাংশ চেক করে নিন।
১০। উল্টো পথে যে কোন যান চালানো থেকে বিরত থাকুন।
১১। গাড়ি চলাচলের নির্ধারিত পথে গাড়ি পার্ক করে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করবেন না।
১২। ধারণ ক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী বহণ করবেন না।
১৩। ক্লান্ত/অসুস্থ/মাতাল অবস্থায় গাড়ি চালানো হতে বিরত থাকুন।
১৪। সর্বদা বাম লেন চালু রাখুন।
১৫। ইন্টারসেকশনে এবং রাস্তায় যাত্রী উঠানো/নামানো হতে বিরত থাকুন।
১৬। ট্রাফিক আইন ও সিগন্যাল জানুন এবং মেনে চলুন।
১৭। বাস বে/নির্দ্দিষ্ট স্থান ব্যতীত যত্রতত্র বাস থামিয়ে যাত্রী উঠানামা করাবেন না।
১৮। গাড়ী থামানোর ক্ষেত্রে সর্বদা রাস্তার বাম ঘেঁসে থামাবেন।
১৯। যাত্রী উঠানো নামানোর স্থান ব্যাতিত যাত্রী ওঠানো/নামানো থেকে বিরত থাকুন।
২০। ডানে/বামে যাওয়ার ক্ষেত্রে ইন্ডিকেটর ব্যবহার করুন।

 

মোটর সাইকেল চালকদের প্রতি-

১। মটর সাইকেল চালানোর পূর্বে গাড়ির সমস্ত কাগজপত্র ও ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক করে নিন ও হালনাগাদ কাগজপত্র সাথে রাখুন।
২। মটর সাইকেলে দুই জনের বেশী আরোহণ করবেন না।
৩। চালক এবং আরোহী উভয়েই হেলমেট ব্যবহার করুন।
৪। ফুটপাতে মটর সাইকেল চালাবেন না।
৫। উল্টো পথে মটর সাইকেল চালানো থেকে বিরত থাকুন।
৬। গাড়ি চলাচলের নির্ধারিত পথে মটর সাইকেল পার্ক করে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করবেন না।
৭। ট্রাফিক সিগন্যাল অমান্য করে মোটর সাইকেল চালাবেন না।

 

মালিকদের প্রতি-

১। চালক নিয়োগের পূর্বে চালকের দক্ষতা, বৈধ লাইসেন্স ও ঠিকানা যাচাই করে নিন।
২। চালকের মেকানিক্যাল ও ট্রাফিক আইন সম্পর্কেও জ্ঞান যাচাই করে নিন।
৩। ড্রাইভাররা যাতে মাতাল/অসুস্থ অবস্থায় গাড়ি চালানো থেকে বিরত থাকে সে বিষয়টি নিশ্চিত করুন।
৪। চালক এর পর্যাপ্ত বিশ্রাম এর বিষয়টি গুরত্ব দিন।
৫। লং রুটের বাস/ট্রাক/কাভার্ড ভ্যান এ দুজন চালক এর ব্যবস্থা রাখুন।
৬। আপনার গাড়ির হালনাগাদ কাগজপত্র গাড়িতে সংরক্ষণ করুন।
৭। গাড়িতে হাইড্রোলিক হর্ণ, হুটার, বিকন লাইট সংযোজন/ব্যবহার (প্রযোজ্য ক্ষেত্র ব্যতীত) করা থেকে বিরত থাকুন।
৮। মাইক্রোবাসের কাঁচে কৃত্রিম আবরণ (টিনটেড পেপার) লাগাবেন না।